শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০২:৫৩ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
বাগমারার রামরামা বরজপাড়া থেকে কুখ্যাত মাদক ব্যাবসায়ী আনোয়ার ৫১৫ পিছ ইযাবা সহ পুলিশের হাতে আটক আমতলী সাংবাদিক ক্লাব ও উপজেলা প্রেস ক্লাবের যৌথ সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত চারঘাটে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের ধর্মীয় গীর্জা নির্মান প্রকল্পের শুভ উদ্বোধন বাঘায় বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত আরএমপি কর্ণহার থানা এর উদ্দ‍্যোগে শারদীয় দূর্গাপূজার সম্প্রতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত রাজশাহীতে চাকরির আশায় যুবক নিঃশ্ব প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা রাজশাহীতে চাকরি ছাড়ার ১ বছর পরে মামলা করে অর্থ দাবি নাসিরনগর দুর্গাপূজা উপলক্ষে জি,আর(চাল) বিতরণ চারঘাটে প্রতিমায় রং তুলির আচঁড়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন কারিগররা তিতাসে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ১৫ টাকা কেজি দরে চাউল বিতরণে অনিয়ম
বাঘায় টাকা ও মোবাইলের জন্য খুন হন স্কুল ছাত্র রাজিব

বাঘায় টাকা ও মোবাইলের জন্য খুন হন স্কুল ছাত্র রাজিব

নিজস্ব প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাঘায় টাকা ও মোবাইলের জন্য খুন হন রাজিব হোসেন (১৫) নামের সেই স্কুল ছাত্র। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বাঘা থানার পুলিশ বুধবার (১৩ জুলাই) রাতে তিনজনকে গ্রেফতার করে। এ হত্যার সাথে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতারকৃতরা পুলিশের কাছে এমন তথ্য দিয়েছেন।


জানা যায়, উপজেলার চকছাতারী গ্রামের আবদুর রাজ্জাকের ছেলে রাজিব হোসেন ৬ জুলাই দুপুরের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বের হয়। তাকে বিভিন্নস্থানে খোঁজ করে পায়নি। ওইদিন বোন চায়না খাতুন বাদি হয়ে বাঘা থানায় একটি সাধারণ ডাইরী করেন। এই ডাইরী করার তিনদিন পর কলিগ্রামের পদ্মা নদী থেকে রাজিব হোসেনের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেন বাঘা থানার পুলিশ।
রাজিব হোসেনের পিতা আবদুর রাজ্জাক লেবারের কাজ ও মা আফরোজা বেগম ঢাকায় গার্মেন্সে চাকুরি করেন। রাজিব বাড়িতে নানির কাছে থেকে বাঘা ইসালামী একাডেমী উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণিতে লেখাপাড়া করে।

কিছুদনি আগে বাবা-মায়ের সাথে কথা বলার জন্য এন্ডয়েড রেডমি ১০ মোবাইল ফোন কিনে দেন। তারপর থেকে প্রতিনিয়ত রাজিব হোসেনের সাথে তিন বন্ধু কলিগ্রামের জামাল হোসেনের ছেলে পিয়াল হোসেন (১৫), মাহাবুর হোসেনের ছেলে সৈকত হোসেন (১৫) ও চকছাতারী গ্রামের ইউসুফ আলীর ছেলে সবুজ আলী (১৪) এখানে সেখানে ঘুরে বেড়াতেন। এক পর্যায়ে সিগারেটখাবে বলে রাজিব পকেট থেকে এক হাজার টাকার একটি নোট বের করে দেয়। তারপর থেকে ওই তিন বন্ধু রাজিবের টাকা ও মোবাইল ফোন কেড়ে নেওয়ার পরিকল্পনা করে। এক পর্যায়ে কৌশলে সন্ধ্যার পর পদ্মা নদীর ধারে যায়। সেখানে গিয়ে রশি দিয়ে স্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। হত্যার পর মুখের মধ্যে রশি ঢুকিয়ে পদ্মা নদীতে ফেলে দেয়। বাড়ি থেকে নিঁখোজের তিনদিন পর ৮ জুলাই সকাল সাড়ে ১০টায় কলিগ্রামের পদ্মা নদী থেকে অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেন পুলিশ। তারা সবাই পরস্পর বন্ধু বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে তার নানি সুরাজান বেগম বলেন, বাড়িতে কেউ থাকেনা। আমি মেয়ের বাড়িতে থাকি আর নাতি রাজিবকে দেখাশুনা করি। নাতি লেখাপড়াতে ভাল। কিন্তু কোন কোন সময়ে ফোন কিনার পর তার বন্ধুদের সাথে এখানে সেখানে বিকেল হলেই ঘুরতে যায়। অন্যদিনের মতো ৬ জুলাই দুপুরের খাবার খাওয়ার পর বাড়ি থেকে বের হয়। আর ফিরে আসেনা।

এ বিষয়ে বাঘা থানার ওসি সাজ্জাদ হোসেন বলেন, রাজিবের কাছে প্রায় ২০ হাজার টাকা ছিল। এই টাকা অন্য বন্ধুরা দেখে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়েছে। এ হত্যার সাথে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতারকৃত তিনজন শিশু আমাদের কাছে এমন তথ্য দিয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের তথ্য অনুযায়ী ফেলে দেওয়া ফোন নারায়নপুর বাজারের পুকুর থেকে ডুবুরি নামিয়ে বৃহস্পতিবার উদ্ধারের চেষ্টা চলছিল।

ফেসবুকে সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2017 আলোকিত ভোরের বার্তা
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com