বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:১৩ অপরাহ্ন

আয়কর রিটার্ন জমা ২৭ লাখ টিআইএনধারীর

আয়কর রিটার্ন জমা ২৭ লাখ টিআইএনধারীর

চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরে ২৭ লাখের বেশি ব্যক্তিগত করদাতা আয়কর রিটার্ন জমা দিয়েছেন। বিভিন্ন ধরনের সেবা পেতে আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়ার প্রমাণপত্র (রিটার্ন স্লিপ) দাখিল বাধ্যতামূলক করায় এই হার বেড়েছে বলে মনে করছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কর্মকর্তারা। এদিকে ৩০ ও ৩১ ডিসেম্বর সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় করদাতারা চলতি অর্থবছরের আয়কর রিটার্ন ২০২৩ সালের প্রথম দিন ১ জানুয়ারিও জমা দিতে পারবেন। এই হিসাবে এ সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) কর শনাক্তকরণ নম্বরধারী (টিআইএন) বিপুলসংখ্যক নতুন করদাতা আয়কর রিটার্ন জমা দিয়েছেন এ বছর। বর্তমানে আয়কর শাখার অধীনে নিবন্ধিত টিআইএনধারী বা করদাতার সংখ্যা ৮২ লাখের বেশি। এর মধ্যে গত অর্থবছরে ২৪ লাখ করদাতা আয়কর রিটার্ন দাখিল করেছেন। চলতি অর্থবছরের বাজেটে এনবিআর ব্যাংক হিসাব খোলা ও চালু রাখাসহ মোট ৩৮ ধরনের সেবা নিতে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের জন্য রিটার্ন জমা দেওয়ার প্রমাণ দাখিল করা বাধ্যতামূলক করেছে।

আয়কর রিটার্ন জমার সময় এক দিন বাড়ানোর ফলে করদাতাদের সেবা প্রদানের জন্য কর অঞ্চলের অফিসগুলোতে ছোট বুথ বসানো রয়েছে। গত বৃহস্পতিবার কর অফিসগুলোতে টিআইএনধারীরা তাদের আয়কর রিটার্ন তৈরি করতে বুথ থেকে সাহায্য নিয়েছেন। অনেক করদাতা জানিয়েছেন, তারা কর অফিসে না এসে করমেলায় রিটার্ন দাখিল করতে পছন্দ করেন। করোনা মহামারির কারণে ব্যয় সাশ্রয়ে এবং জনসমাগম এড়াতে এনবিআর তিন বছর ধরে বড় আকারের করমেলার আয়োজন করছে না। করদাতারা জানিয়েছেন, শহরে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকায় কর অফিস খুঁজে বের করা কঠিন। মেলায় সব করদাতা কর অফিসের বুথ এক জায়গায় খুঁজে পান। করদাতাদের আয়কর রিটার্ন জমা দিতে এবং টিআইএন পেতে সহায়তা করার জন্য কর অঞ্চল প্রদত্ত সেবার প্রশংসা করেছেন।

আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়ার সময়সীমা নির্ধারিত ছিল চলতি বছরের ৩০ নভেম্বর। ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে এনবিআর ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বাড়ায়। ৩০ এবং ৩১ ডিসেম্বর সরকারি ছুটির দিন হওয়ায় করদাতাদের রিটার্ন জমা দেওয়ার জন্য আরও একটি অতিরিক্ত দিন সময় পাবেন।

 

এনবিআর সূত্র জানায়, ২০২১-২২ অর্থবছরে ব্যক্তি শ্রেণির মাত্র ৩৭ শতাংশ কর শনাক্তকরণ নম্বরধারী (টিআইএন) বার্ষিক আয়কর বিবরণী বা রিটার্ন জমা দিয়েছিলেন। অথচ করযোগ্য আয় নেই, এমন জমি ক্রেতা ও ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারকারী ছাড়া বাকি সব টিআইএনধারীর রিটার্ন জমা বাধ্যতামূলক। সেই হিসাবে মোটা দাগে প্রায় ৪০ লাখ টিআইএনধারী গেল বছর রিটার্ন দেননি।

এনবিআরের হিসাবে, ২০২২ সালের ২ জানুয়ারি পর্যন্ত সব মিলিয়ে ২২ লাখ ৯৯ হাজার ৬২৫ জন করদাতা তাদের বার্ষিক আয়-ব্যয়ের রিটার্ন জমা দিয়েছেন। রিটার্ন দেওয়া এমন করদাতার সংখ্যা মোট টিআইএনধারীর মাত্র ৩৭ শতাংশ।

ফেসবুকে সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2017 আলোকিত ভোরের বার্তা
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com