বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ১১:১৩ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট :
রাজশাহীতে সার্জেন্টকে মারধর করা যুবককে ২৪ ঘন্টায় আটক করতে পারেনি পুলিশ রাজশাহীর বাগমারায় খাল থেকে অজ্ঞাত নারীর লাশ উদ্ধার বাগমারার শ্রীপুরে হাফেজিয়া মাদ্রাসার ভিত্তিপ্রস্তর উদ্ধোধন নাটোররে লালপুরে এমপি বকুলের পক্ষ থেকে শীতবস্ত্র বিতরণ!! রাজশাহীতে মোটরসাইকেল চালককে বাঁচাতে গিয়ে উল্টে গেল ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি! বাগমারার শ্রীপুরে হাফেজিয়া মাদ্রাসার ভিত্তিপ্রস্তর উদ্ধোধন নড়াইল পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দু’টি অফিসে আগুন রাজশাহীতে রেল কর্মকর্তার বিরুদ্ধে চাকরি দেয়ার নামে ধর্ষণের অভিযোগ Custom Paper – How to Produce Your Own সেই ভুয়া চিকিৎসকের ১ মাসের কারাদন্ড, দোকান সিলগালা

রাজশাহীর দূর্গাপুর উপজেলায় মাদকের হাট, কঠোর ভুমিকায় দূর্গাপুর ওসি হাসমত।

রাজশাহীর দূর্গাপুর উপজেলায় মাদকের হাট, কঠোর ভুমিকায় দূর্গাপুর ওসি হাসমত।

মোস্তাফিজুর রহমান জীবন বাগমারা : রাজশাহীর দূর্গাপুর উপজেলায় মাদকের উপরে পুলিশী অভিযান না থাকায় মাদকের রমরমা বানিজ্য চলছে। সরকার মাদকের জিরো টলারেন্স ঘোষণা করলেও দূর্গাপুর উপজেলায় হাত বাড়ালেই পাওয়া যাচ্ছে মরণ নেশা গাঁজা, ফেনসিডিল, ইয়াবা ও হেরোইন।

এতে যুবসমাজ মাদক সেবন করে বিপথগামী হচ্ছে। জড়িয়ে পড়ছে চুরি, ছিনতাই ব্ল্যাকমেইলসহ ঘুনের মতো জঘন্য অপরাধে। প্রশাসনের অবহেলার কারণে এলাকার কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ীরা মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে। প্রকাশ্যে বিক্রি করছে হেরোইন, ইয়াবা ও ফেন্সিডিলসহ নানা বাহারী মাদকদ্রব্য। আর এইসব মদকদ্রব্য খুচরা ও পাইকারী বিক্রয় করে লাখ লাখ টাকার পাহাড় গড়ে তুলছে।চাইলেই হাতের কাছে পাওয়া যায় এসকল মাদকদ্রব্য তাই মাদক সেবন ব্যাক্তির সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

অভিযোগ উঠেছে, মাদক ব্যবসায়ীরা এই সকল অবৈধ মাদকদ্রব্য বিক্রি করছে স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে।

তাহেরপুর বাজারে পাশ্ববর্তী ওয়ালটন শো রুমের পাশে মরন নেশা ইয়াবা বিক্রয় করছে চিহ্নিত কুখ্যাত মাদক লেডি কহিনুর ও পারুল। এদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য আইনে মামলাও রয়েছে।
বাদইল সুইজ গেটে মরন নেশা ফেনসিডিল বিক্রয় করছে চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী মজনু।ইতোমধ্যে এই ব্যবসা করে টাকার পাহাড় গড়েছেন।অবৈধ ভাবে পুকুর খননও করেছেন কয়েকটি । টাকা বেশি হওয়ায় এলাকার লোক ভয়ে কিছু বলে না।
গনকৈড় গ্রামের উত্তর পাড়া
গাঁজা বিক্রয় করছে আসাদুল।
গোপালপাড়া গ্রামে চোয়ানী বিক্রয় করছে ওসমান।গাঁজা বিক্রয় করছে শফিক।

নান্দিগ্রাম মাদ্রাসার সামনে মরন নেশা ফেনসিডিল ও ইয়াবা বিক্রয় করছে চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী রহমত।নতুন করে মরন নেশা ফেনসিডিল বিক্রয় শুরু করেছে আলিমদ্দি।

দেবিপুর কাবাড়ি পাড়া মরন নেশা ফেনসিডিল বিক্রয় করছে মাইনুর ও সানু।তাদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য আইনে একাধিক মামলাও রয়েছে।
পুরান তাহিরপুর স্কুলের পাশে গাঁজা বিক্রয় করছে আজাহার।
দাম কম হওয়ায় বেলঘরিয়া বাজারের আশেপাশে তালের রস বিক্রয় করার মহাধুমধাম।
তালের রস খেয়ে মাতলামু করতেও দেখা যায় এই বাজারের আশেপাশে।

উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে মাদক ব্যবসায়ীদের আস্তানা গড়ে উঠেছে। এতে করে মাদকাসক্তের সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। মাদকের নেশায় তলিয়ে যাচ্ছে ছাত্র-যুবক তথা তরুণ প্রজন্ম। ধংশ হয়ে যাচ্ছে ভবিষ্যত প্রজন্ম।
বর্তমানে ইয়াবা, হেরোইন ও ফেনসিডিলের দিকে নজর মাদক সেবিদের। উচ্চবিত্ত থেকে শুরু করে নিম্নবিত্ত শ্রেণীর হাজারো কিশোর-যুবক আশক্ত হয়ে পড়ছে মাদকে। এছাড়া মাদক ব্যবসায়ীরা মোবাইল ফোনে মাদকের অর্ডার নিয়ে বিভিন্ন স্হানে ভ্রাম্যমান হিসেবে তাদের ছোট বড় ছেলে-মেয়েদের দিয়ে পৌঁছে দেন।
আর বিভিন্ন রকমের নেশা সেবনের জন্য নিম্ন আয়ের মাদক সেবীরা নেশার টাকা যোগাড় করতে না পেরে দূর্গাপুর উপজেলা বাজারের বিভিন্ন দোকান-বাড়ীর তালা ভেঙ্গে মূল্যবান জিনিষ, নগদ অর্থ, গরু-ছাগল, বাইসাইকেল, ভ্যানগাড়ি দিনে দুপুরে চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে মাদক টাকার যোগানদিতে। চুরির মালামাল সামান্য কিছু টাকা দিয়ে বিক্রিয় করে মাদক কিনে সেবন করছে মাদকাসক্তরা।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মাদকসেবী বলেন চারঘাট সহ বিভিন্ন এলাকায় ১ টি ফেনসিডিলের দাম ৮০০ টাকা, কিন্তু আমাদের দূর্গাপুর উপজেলায় কিনতে হয় ১২০০ টাকা।তিনি আরো বলেন অধিক লাভের আশায় ১টি ভেঙ্গে অতিমাত্রার ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে তৈরী করা হয় ২টি ফেনসিডিল বোতল। যা খেয়ে নানাবিধ সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে হারাচ্ছে যৌন ক্ষমতা

২০১৮ সালের ৪ মে দেশ জুড়ে শুরু হয় মাদকের বিশেষ অভিযান, সেই অভিযানে বেশ কিছু মাদক ব্যবসায়ী বন্দুক যুদ্ধে নিহত হয় কিন্তুু তবুও বন্ধ হয়নি মাদক বিক্রয় ও সেবন।

পুলিশ, র‍্যাব, বিজিবি,নৌবাহিনী ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে ২০০৯ থেকে ২০১৮ সাল মোট হয় ১১৯৮৭৮ মোট আসামী ধরা পড়েছে ১৬১৩২৩ জন।
২০১৯ সালে মোট মামলা হয় ১২৪০৯৮ টি আসামী ধরা পড়েছে ১৬২৮৪৭ জন।
বিশেষ অভিযান শুরু হলেও পরের বছর মামলা ও আসামী সংখ্যা বৃদ্ধি পায়।২০২০ সালের মার্চ মাসে দেশ জুড়ে মহামারী করোনা ভাইরাস আসলে সকল প্রশাসন করোনা ভাইরাস নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। ঠিক সেই সুযোগ কাগে লাগিয়ে মাদক ব্যবসায়ী বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে মাদক ব্যবস্যা করছে।
তবে সব মিলে এলাকার অভিভাবক মহল আগামী প্রজন্মকে রক্ষায় উদ্বেগ আর উৎকন্ঠার মধ্যে রয়েছে এলাকাবাসীর দাবি মাদক ব্যবসা সাথে যারা জড়িত তাদের দূত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে হবে। সেই সাথে যারা মাদক সেবন করছে তাদের কেউ সংশোধন করতে হবে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে দূর্গাপুর থানার নবাগত অফিসার ইনচার্জ হাসমত আলি বলেন আমি নতুন এসেছি ইতোমধ্যে মাদক ব্যবসায়ীদের একটি তালিকা করা হয়েছে।খুব দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018-2020  Bhorarbatra.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com